সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত খবর :
অটিস্টিক শিশুদের আবাসন ও কর্মসংস্থান করবে সরকার   ||   নারীর প্রতি যৌন ও পারিবারিক সহিংসতা ক্রমাগতই বাড়ছে   ||   শান্তিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি হলেন মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা ছদরুল ইসলাম  ||

মাধ্যমিকে আরও ২ হাজার শিক্ষক পদ শূন্য

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৪৮০ বার পঠিত:
আপডেট সময় : সোমবার, ৯ আগস্ট, ২০২১
মাধ্যমিকে আরও ২ হাজার শিক্ষক পদ শূন্য

সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দুই হাজার ১০০ জন সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে আরও দুই হাজার সহকারী শিক্ষকের পদ খালি হয়েছে। প্রধান শিক্ষকের পদ খালি ২৩৩টি। সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদ খালি আছে ১৫২টি। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

জানা গেছে, সারাদেশে নতুন জাতীয়করণসহ মোট সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৮৩টি। এর মধ্যে প্রধান শিক্ষকের ২৩৩টি পদ শূন্য। এসব পদে সহকারী প্রধান শিক্ষক অথবা জ্যেষ্ঠ কোনো সহকারী শিক্ষক প্রধান শিক্ষকের ভারপ্রাপ্ত পদে দায়িত্ব পালন করছেন। এ ছাড়া সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদ খালি ১৫২টি। বিভিন্ন বিষয়ে সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে দুই হাজার ১৮২টি। সবমিলিয়ে প্রায় আড়াই হাজার পদ খালি রয়েছে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। সহকারী শিক্ষকের শূন্য পদের মধ্যে রয়েছে- বাংলায় ৫০৫টি, ইংরেজিতে ১৭৫টি, গণিতে ২০৫টি, সামাজিক বিজ্ঞানে ৮৩টি, ভৌতবিজ্ঞানে ১৮০টি, জীববিজ্ঞানে ২২৭টি, ব্যবসায় শিক্ষায় ৭৪টি, ভূগোলে ১১১টি, চারুকলায় ১৫৭টি, শারীরিক শিক্ষায় ১০৮টি, ইসলাম ধর্মে ২৪৩টি ও কৃষিশিক্ষায় ৭৭টি।

এদিকে গত ৮ মাস আগে বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন থেকে দুই হাজার ১০০ জন সহকারী শিক্ষক নিয়োগের জন্য সুপারিশ করলেও পুলিশ ভেরিফিকেশনের নামে সে কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। তবে সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন, পুলিশ ভেরিফিকেশনের কাজ শেষ পর্যায়ে, দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষকদের যোগদান কার্যক্রম শুরু করা হবে।

মাউশি পরিচালক (মাধ্যমিক) অধ্যাপক বেলাল হোসাইন বলেন, ‘বর্তমানে মাধ্যমিকে একটি নিয়োগ চলমান রয়েছে। আশা করছি দ্রুতই সেটি শেষ হবে। এরপর ২০২৩ সাল পর্যন্ত কী পরিমাণ শূন্যপদ সৃষ্টি হতে পারে তার চাহিদা নেয়া হবে। সেটার ভিত্তিতে পৃথক বিজ্ঞপ্তি অথবা বিসিএস নন-ক্যাডার থেকে নিয়োগ দেয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘শিক্ষক নিয়োগও একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়ার বিষয়। শিক্ষকের এ সংকট একদিনেই সমাধান করা সম্ভব নয়। কর্মরত যেসব শিক্ষক রয়েছেন, তাদের সুষমভাবে পদায়ন করা গেলেও কিছুটা সমাধান হবে বলে আশা করছি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ