শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৯:৩২ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত খবর :
অটিস্টিক শিশুদের আবাসন ও কর্মসংস্থান করবে সরকার   ||   নারীর প্রতি যৌন ও পারিবারিক সহিংসতা ক্রমাগতই বাড়ছে   ||   শান্তিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি হলেন মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা ছদরুল ইসলাম  ||

ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের ৫২ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

ঢাকা কলেজ প্রতিনিধি, বাংলা সংবাদ / ৫১৭ বার পঠিত:
আপডেট সময় : বুধবার, ৬ অক্টোবর, ২০২১
ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের ৫২ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

পরীক্ষায় অবৈধ পন্থা অবলম্বন ও অন্যান্য অপরাধের দায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের ৮ জন শিক্ষার্থীকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে। পাশাপাশি একই অভিযোগে ৪৪ জন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে ( অংশগ্রহণ করা পরীক্ষা বাতিল সহ আরো ১/২/৩ বছর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন না) বহিষ্কার করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা পরিষধ সভার সুপারিশ অনুযায়ী ২৯ সেপ্টেম্বর নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে সিন্ডিকেটের এক সভায় বহিষ্কারের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বহিস্কৃত শিক্ষার্থীদের তালিকা এ সপ্তাহে সংশ্লিষ্ট কলেজে পাঠাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে কলেজের সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে শিক্ষার্থীকে জানানো হবে।

এছাড়া, ডিজিটাল পদ্ধতিতে জালিয়াতি ও অবৈধ পন্থা অবলম্বন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া ২ জন শিক্ষার্থীকে স্থায়ীভাবে ও পরীক্ষার অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ( সাত কলেজ ব্যতীত) অন্যান্য কলেজের ২০ জন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেট৷

সাত কলেজের বহিস্কৃত শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্থায়ীভাবে বহিস্কৃত ৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে সরকারি বাঙলা কলেজের ৫ জন ও ঢাকা কলেজের ৩ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন । বিভিন্ন মেয়াদে বহিস্কৃত ৪৪ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে ইডেন মহিলা কলেজের ১২ জন, সরকারি তিতুমীর কলেজের ১২ জন, সরকারি বাঙলা কলেজের ৯ জন, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের ৬ জন, কবি নজরুল সরকারি কলেজের ৪ জন ও ঢাকা কলেজের ১ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাত কলেজের সমন্বয়ক ( ফোকাল পয়েন্ট) ও ঢাকা কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বলেন, শৃঙ্খলা পরিষদের সভার পরামর্শ অনুযায়ী সিন্ডিকেট এ সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। শিক্ষার্থীরা শাস্তি কমানোর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকট যথাযথ পদ্ধতিতে আবেদন করতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয় সেটা বিবেচনা করবে।

উল্লেখ্য, অপরাধের জন্য অনুতপ্ত হয়ে কোন শিক্ষার্থী উপাচার্য বরাবর শাস্তি হ্রাসের আবেদন করলে উপাচার্য বিশেষ বিবেচনায় শাস্তি এক বছর হ্রাস করতে পারবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ