সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত খবর :
অটিস্টিক শিশুদের আবাসন ও কর্মসংস্থান করবে সরকার   ||   নারীর প্রতি যৌন ও পারিবারিক সহিংসতা ক্রমাগতই বাড়ছে   ||   শান্তিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি হলেন মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা ছদরুল ইসলাম  ||

চিকিৎসা ব্যবস্থাকে অস্থিরতার মুখে ঠেলে দেবে চিকিৎসকদের গণবদলি

সম্পাদকীয় ডেস্ক / ৫৬৮ বার পঠিত:
আপডেট সময় : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১
চিকিৎসা ব্যবস্থাকে অস্থিরতার মুখে ঠেলে দেবে চিকিৎসকদের গণবদলি

ডা. এম এ আজিজ
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা জীবন-জীবিকার সমন্বয় নিশ্চিত করে, জাতীয় অর্থনীতির চাকা সচল রেখেই দেশকে করোনা মোকাবিলায় সফল নেতৃত্ব দিয়ে বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছেন। তারই নেতৃত্বে কোভিডকালের শুরু থেকেই দেশের চিকিৎসকরা সবচেয়ে সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে লড়াই করছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখনই চিকিৎসকদের যে নির্দেশনা দিয়েছেন, দেশের চিকিৎসকরা সে নিদের্শনা শিরোধার্য জ্ঞানে যুদ্ধক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন করে গেছেন। কিন্তু এই কোভিডকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কতিপয় আমলার চরম দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ ও কর্মকাণ্ড পুরো স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকেই বারবার প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিচ্ছে।

গতকাল আকস্মিকভাবে দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজের কয়েকশ শিক্ষক-চিকিৎসকের গণবদলির আদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোর বিরাজিত চিকিৎসা ব্যবস্থাকে অস্থিরতার মুখে ঠেলে দিয়েছে। এই আদেশ আমলাতান্ত্রিক মূর্খতার আরেকটি উদাহরণ মাত্র, না-কি চিকিৎসকদের হতাশায় নিমজ্জিত করে অস্থিরতা সৃষ্টির ধারাপাত? আসুন, এ আদেশের প্রেক্ষিতে কয়েকটি বিষয় ভেবে দেখি :

১. স্বাস্থ্যমন্ত্রী মহোদয় এ আদেশ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল ছিলেন এমন তথ্য মিলছে না কোথাও, আমলারা বিভিন্ন সময়ের মতো মন্ত্রীকে বিব্রত করার আরেকটি অপকৌশল গ্রহণ করেছেন বলেই সবার ধারণা। এ আদেশ জারির পূর্বে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকদ্বয়, পরিচালক (প্রশাসন), বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য), মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ এমনকি সংশ্লিষ্ট জেলার সিভিল সার্জন, যারা ১৫ মাস ধরে কোভিড ব্যবস্থাপনায় সফলতার সঙ্গে সম্পৃক্ত, তাদের সঙ্গে কি ন্যূনতম আলোচনা বা সমন্বয় করা হয়েছে? আমার জানামতে মন্ত্রণালয় তা না করেই তাদের খেয়ালখুশি মতো কোভিড চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার নাম করে শ’য়ে শ’য়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে সদর হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বদলি করেছে। কিন্তু বদলিকৃত হাসপাতালে এসব বিশেষজ্ঞের কাজ কী হবে, তা ন্যূনতম বিবেচনায় নেয়া হয়নি।

বেসিক বিষয়ের শিক্ষকতায় যুক্ত চিকিৎসকরা উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সে কোভিড রোগীদের কী সেবাদান করবেন? এসব চিকিৎসক প্রায় প্রতিদিন এমনকি রাতেও অনলাইনে ক্লাস নিয়ে সিলেবাস শেষ করছেন কলেজগুলোতে। এ বদলি আদেশের ফলে ছাত্ররাও বঞ্চিত হবেন শিক্ষকদের ক্লাস থেকে। বেসিক বিষয়ের অধ্যাপনার সঙ্গে যেসব চিকিৎসক সম্পৃক্ত তাদের প্রায় সবাই দীর্ঘসময় ধরে রোগীদের চিকিৎসাসেবা প্রদান থেকে দূরে। তারা হঠাৎ করে কোভিড রোগীদের কী চিকিৎসাসেবা প্রদান করবেন সদর হাসপাতাল বা উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সে?

২. যুদ্ধক্ষেত্রে সেনাপতি কে, সৈনিকই বা কারা, তা নির্দিষ্ট করা থাকে, এটিই নিয়ম। অথচ এ আদেশে কোনো চিকিৎসকের পদবি উল্লেখ না করেই কোভিড যুদ্ধের রণাঙ্গনে পাঠানো হলো। শুধু নাম ও কোড নং দিয়ে চিহ্নিত করে। যুদ্ধের ময়দানে জেনারেল, ব্রিগেডিয়ার, কর্নেল, লেফটেন্যান্ট, সৈনিকদের কাজের ক্ষেত্র সুনির্দিষ্ট করা থাকে। কিন্তু এ আদেশে কোভিড যুদ্ধের ময়দানে প্রেরণকারী চিকিৎসকদের সবাই যেন সৈনিক, জেনারেল-ব্রিগেডিয়ার-কর্নেল-লেফটেন্যান্ট-ক্যাপ্টেন সবাই এক কাতারে। সৈনিকদের নেতৃত্বেই যেন কোভিড যুদ্ধ হবে! আহাম্মক মস্তিষ্ক ব্যতীত এরকম সিদ্ধান্ত পয়দা হতে পারে না।

৩. বদলির আদেশাধীন চিকিৎসকদের একটি বড় অংশ ৫০ পেরোনো, এ বয়সের চিকিৎসকদের কোভিড রোগীর চিকিৎসা দিতে বাধ্য করা কতোটা বৈজ্ঞানিক? এ সিদ্ধান্ত কি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সমর্থন করে?

৪. মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে কোভিড রোগীর তুলনায় অন্তত ১০ গুণ নন-কোভিড রোগীর চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। বদলির আদেশে বিভিন্ন বিভাগ খালি করে যে হারে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সংযুক্তিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তাতে নন-কোভিড রোগীর চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা ভেঙে পড়তে বাধ্য, এর দায়ভার কে নেবে?

৫. বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকদের সঙ্গে আলোচনা না করে পদায়নের ফলে চাহিদা নেই এমন অনেক হাসপাতালেও অহেতুক বিশেষজ্ঞ শিক্ষক-চিকিৎসক পদায়িত করা হয়েছে, যা বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছে। যেমন- চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে শ’খানেক কোভিড রোগী ভর্তি থাকেন। এ হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ শিক্ষক-চিকিৎসকদের তেমন কোনো চাহিদা নেই, অথচ এ হাসপাতালে ৬০ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে বদলির আদেশ দেয়া হয়েছে।

৬. এ তুঘলকি আদেশে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ, শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ, চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ, নাক-কান গলা রোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন, নিউরোসার্জন, জেনারেল সার্জন, ডেন্টাল সার্জন ইত্যাদি নানা বিশেষায়িত বিষয়ের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে সদর হাসপাতাল, উপজেলায় বদলি করা হয়েছে। এসব চিকিৎসকের কোভিড রোগী চিকিৎসার ক্ষেত্র কোথায়? সদ্য বদলিকৃত কোভিড কর্মস্থলে তাদের করণীয়ই বা কি হবে?

৭. কোনো কোনো মেডিকেল কলেজে আরটি-পিসিআর ল্যাবে কর্মরত সব চিকিৎসককে একযোগে বদলি করা হয়েছে। যেমন- চট্টগ্রাম ও রংপুর মেডিকেল কলেজ ল্যাবের প্রায় সবাই বদলি হয়েছেন। এই ল্যাবগুলো এখন পরিচালনা করবেন কে বা কারা, তারও কোনো নির্দেশনা নেই, নাকি ল্যাবগুলো বন্ধ করে টেস্ট যাতে না হয় সে লক্ষ্যেই এ সিদ্ধান্ত?

৮. আমলাদের এ আগ্রাসী আদেশে মৃত ও অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসকরাও রেহাই পাননি। ডা. ফেরদৌস আরা বেগম, কোড নং- ৩৯৯১১, সহকারী অধ্যাপক, গাইনি ও অবস্ বিভাগ, রংপুর মেডিকেল কলেজে কর্মরত ছিলেন, তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন আরও আগে। এ আদেশে তিনিও বদলি হয়েছেন! কবরেও স্বস্তি নেই, শান্তি মিলছে না চিকিৎসকদের! ডা. মমতাজ বেগম, কোড নং- ৩২৬৬০, সহকারী অধ্যাপক, শিশু স্বাস্থ্য বিভাগ, তিনিও রংপুর মেডিকেল কলেজ থেকে অবসরে গেছেন আরও আগে, এ আদেশে তিনিও বদলি হয়েছেন! অবসরেও নিরাপদ থাকতে পারলেন না তিনি!

৯. কোভিড হাসপাতালগুলোতে চাহিদা রয়েছে আইসিইউতে কাজ করেন এমন বিশেষজ্ঞ বা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক এবং কিছু মেডিকেল অফিসার বা সহকারী সার্জন। চাহিদা ও অগ্রাধিকার সুনির্দিষ্টভাবে চূড়ান্ত না করে নিজেদের মর্জিমাফিক এমন বদলির আদেশ চলমান চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় শুধু সংকটই বাড়াবে, সমাধানের কোনো পথ বাতলে দেবে না।

১০. বদলিকৃত চিকিৎসকদের একটি বড় অংশ দূরের উপজেলা বা জেলা সদরে। নতুন কর্মস্থলে তারা যাবেন কীভাবে, তাদের বাহন কি? এসব চিকিৎসক নতুন কর্মস্থলে থাকবেন কোথায়? এসব প্রয়োজনীয় বিষয়াবলি বিবেচনায় না নিয়েই এ অপ্রয়োজনীয় আদেশ চিকিৎসকদের হতাশ করবে, অস্থিরতার মুখে ঠেলে দেবে পুরো চিকিৎসা ব্যবস্থাপনাকে।

লেখক : স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) মহাসচিব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ