শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত খবর :
অটিস্টিক শিশুদের আবাসন ও কর্মসংস্থান করবে সরকার   ||   নারীর প্রতি যৌন ও পারিবারিক সহিংসতা ক্রমাগতই বাড়ছে   ||   শান্তিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি হলেন মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা ছদরুল ইসলাম  ||

আর্তমানবতার ফেরিওয়ালা যুক্তরাজ্য প্রবাসী ,দানবীর এমদাদ চৌধুরী

হাফিজ আসাদুজ্জামান / ৪৬৪ বার পঠিত:
আপডেট সময় : বুধবার, ৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
আর্তমানবতার ফেরিওয়ালা যুক্তরাজ্য প্রবাসী ,দানবীর এমদাদ চৌধুরী

আল্লাহ তায়ালা দুনিয়াতে কিছু সংখ্যক মানুষকে নির্বচিত করেন, শিক্ষা প্রতিষ্টান,মসজিদ-মাদ্রাসা,গরীব অসহায় হতদরিদ্র মানুষের সেবা করার জন্য। তাদের চিন্তা ধারনা সব সময় থাকে এ সমস্ত নিয়ে। তন্মধ্যে আমার জানামতে একজন হলেন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ বর্তমানে(শান্তিগঞ্জ) উপজেলার দরগাপাশা গ্রামের মরহুম আব্দুস সুবহান চৌধুরী (ছরুক মিয়া) সাহেবের কনিষ্ঠ পুত্র,মুসলিম সম্ব্রান্ত পরিবারের সন্তান,বন্ধুবর,বিশিষ্ট দানবীর,যুক্তরাজ্য প্রবাসী ,যুক্তরাজ্য বার্ণলী শাখার জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মোঃ এমদাদ হোসেন চৌধুরী (শিবলী) এইতো কিছু দিন আগে তিনি দেশে আসেন জন্মভুমি মাটি ও মানুষের জন্যে। এসেই দ্বিগবিদ্বিগ ছুটে চলেন অবিরাম। সময় দিচ্ছেন বন্ধু-বান্ধব,আত্নীয় স্বজন ও পরিচিতদের সাথে। তাহার দানের কিছু উল্লেখ না করলে মনে প্রশান্তি আসবেনা। তাই কিছুটা উল্লেখ করতে আজকের এই লেখা।

(১) নিজ অর্থায়নে ও আত্নীয় স্বজনদেও অর্থায়নে পার্শবর্তী খছদ্দরপুর গ্রামে ভুমিসহ একটা মসজিদ নির্মান কাজ করেন, যেখানে আমি উপস্থিত ছিলাম শুভ উদ্ভোধন হয় মখতছর ওয়াজের মাধ্রমে।
(২) আক্তাপাড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসায় উন্নয়ন মূলক কাজের জন্য এক লক্ষ টাকা দান করেন।
(৩) তাহার গ্রামের আব্দুর রশিদ উচ্চ বিদ্যালয়ে পঞ্চাশ(৫০০০০) হাজার টাকা অনুদান দেন।
(৪) আক্তাপাড়া নূরপুর গ্রামে একটি মসজিদের জন্য ত্রিশ(৩০০০০) হাজার টাকা অনুদান দেন।
(৫) হরিনগর গ্রামের মাদ্রাসা নির্মনের জন্য পঞ্চাশ (৫০০০০) হাজার টাকা দান করেন।
(৬) তাহার চাচাতো ভাইকে বড় অংকের টাকা দিয়ে একটা ব্যবসা প্রতিষ্টান করে দেন।
(৭) মীরপুর আল-ইসলাহ অফিসের জন্য ১০টি চেয়ার দেয়ার প্রতিশুতি দেন।
(৮) আমাকে পার্সনাল ভাবে কল্পনাতীত একটি আর্থিক সগযোহিতা করেন, যা ভুলার নয়।
(৯) তাহার নিজ গ্রামে নোয়াগাওঁ জামে মসজিদের সদরগেট সংস্কার করেন,একাই উদ্যোগ নিয়েছেন এমনকি ৭০% ভাগ কাজ ইতিমধ্যে সম্পর্ন হওয়ার পথে।
(১০) তাহার এলাকার ৮৩টি হিন্দু পরিবারকে নিত্য প্রয়েজনীয় খাদ্য সামগ্রী যেমনঃ তৈল,ময়দা,পেয়াজ ইত্যাদি দান করেন।

পরিশেষে বলবো যাদের কে আল্লাহ তায়ালা মালেগনি করেছেন, তাহারা যদি দানবীর এমদাদ চৌধুরীর মত আর্তমানবতার জন্য নিজেকে বিলিয়ে দেন, তাহলে দেশ ও দশের উপকার হবে ইনশায়াল্লাহ।

জনাব,মোঃ এমদাদ হোসেন চৌধুরী ৬ই ফেব্রুয়ারী দেশের মাটি থেকে যুক্তরাজ্যে চলে গিয়েছেন। সময় সল্পতার জন্য বন্ধু-বান্ধব ও আত্নীয় স্বজনদেও সাথে দেখা করতে না পরায় দুঃখ্য প্রকাশ করেছেন।

আল্লাহ তায়ালা যেন তাহার মুক্তহস্ত দানের বিনিময়ে তাহার কবর বাসি মা-বাবা ও ভাইকে জান্নাতের উচ্চ মাকাম দান করেন,আমিন ছুম্মা আমিন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ